টাইগারদের সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ

চট্রগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শেষর দুই উইকেটে বড় কিছুর আশা নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করেছিল টাইগাররা। কিন্তু ১১ রানে ২ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ অলআউট হয়ে যায় ২০৫ রানেই। আফগানিস্তান প্রথম ইনিংসে পায় ১৩৭ রানের লিড। দ্বিতীয় ইনিংসে প্রথম চার বলে ২ উইকেট তুলে নিয়ে শুরুটা দারুণ করেছিলেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু ভালো শুরুটা ধরে রাখতে পারেনি স্বাগতিকরা। ইব্রাহিম জাদরান ও আসগর আফগান শুধুই হতাশ করেছে বাংলাদেশকে।

মাত্র ১৩ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছেন অভিষিক্ত ইব্রাহিম। প্রথম ইনিংসে ৯২ রানের এবার ৫০ করেছেন আসগর। ৩৪ রানে অপরাজিত আছেন আফসার জাজাই। দিন শেষে আফগানিস্তানের লিড ৩৭৪ রানের, হাতে এখনো ২ উইকেট। ম্যাচ বাঁচাতে শেষ দুই দিনে অবিশ্বাস্য কিছুই করে দেখাতে হবে বাংলাদেশকে।

এর আগে পর পর দুই উইকেট হারিয়ে চাপে পরে আফগানরা। সফরকারীদের সেই চাপ আরো বাড়ে যখন নাঈম ইসলামের বলে প্যাভিলিয়নে ফিরে যায় হাশমতউল্লাহ শাহিদি। তবে ইব্রাহিম জাদরান ও আসগর আফগানের দায়িত্বশীল ব্যাটিং নৈপুণ্য বড় সংগ্রহের পথে এগুতে থাকে আফনারা। তবে তাইজুল ইসলামের বলে আসগর আফগান প্যাভিলিয়নে ফিরে গেলে ইব্রাহিম জাদরানের সাথে ১০৮ রানের জুটি ভেঙ্গে যায়। আর সেঞ্চুরির পথে থাকা ইব্রাহিম জাদরানকে আউট করেন নাঈম ইসলাম। মাত্র ১৩ রানের জন্য অভিষেকে সেঞ্চুরি মিস করেছেন ইব্রাহিম।

দলীয় ১৮০ রানে মোহাম্মদ নবীকে আউট করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। স্কয়ার লেগে মুমিনুল হকের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। নবী আউট হওয়ার পর ক্রিজে আসেন আফগান অধিনায়ক রশিদ খান। এসেই টাইগার বোলাদের টি-টোয়েন্টির মত খেলেতে থাকেন তিনি। তবে তার ইনিংস বড় করতে দেননি তাইজুল ইসলাম। ব্যাক্তিগত ২৪ রানে তাইজুলের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরে যায়। কিছু পরেই সাকিবের বলে আউট হয় কায়েস আহমেদ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

তৃতীয় দিন শেষে

আফগানিস্তান ২য় ইনিংস:২৩৭/৮ (৮৩.৪ ওভার)

আফগানিস্তান ১ম ইনিংস: ৩৪২/১০

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২০৫/১০

বাংলাদেশ একাদশ: সৌম্য সরকার, সাদমান ইসলাম, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, লিটন দাস (উইকেটরক্ষক), মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান।

আফগানিস্তান একাদশ: ইহসানউল্লাহ জানাত, ইব্রাহিম জাদরান, রহমত শাহ, হাশমতউল্লাহ শাহিদি, আসগর আফগান, মোহাম্মদ নবী, আফসার জাজাই, রশিদ খান, ইয়ামিন আহমদজাই, কায়েস আহমেদ, জহির খান।

আরও পড়ুন