টেক্সাসের বন্দুকধারী, ট্রাম্প ও ক্রাইস্টচার্চ হামলার সমর্থক

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের এল পাসো সিটির ওয়ালমার্ট সুপার সেন্টারে আকস্মিক এক বন্দুকধারীর হামলায় ২০ জন নিহত হয়েছে। ওই ভয়াবহ হামলার ঘটনায় আহত হয়েছে কমপক্ষে ২৬ জন। তবে বন্দুকধারীকে আটক করা হয়েছে। মার্কিন গণমাধ্যম জানিয়েছে, তার নাম প্যাট্রিক ক্রুসিয়াস। সে মূলত লাতিন আমেরিকান বিদ্বেষী। হামলার আগে অনলাইনে পোস্ট করা এক ‘ইশতেহারে’ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলাকে সমর্থন জানায় সে।

শনিবার (৩ আগস্ট) স্থানীয় সময় বেলা ১১টার দিকে ‍যুক্তরাষ্ট্র এবং মেক্সিকো সীমান্তে থেকে কয়েক মাইল দুরে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে মার্কিন গণমাধ্যম জানায়, হামলাকারী বিভিন্ন টুইটেও লাতিন আমেরিকান অভিবাসীদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়াতো। ‘ষড়যন্ত্র তত্ত্ব’ প্রচার করে এমন অনলাইন গ্রুপে অ্যাকটিভ ছিলো সে।

প্যাট্রিকের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে করা পোস্টে একাধিকবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পেরও প্রশংসা করা হয়েছে।

হামলা চালাতে ৯ ঘণ্টা গাড়ি চালিয়ে এল পাসো শহরে এসেছিলো এই শেতাঙ্গ বর্ণবাদী। এল প্যাসো থেকে প্রায় ৬৫০ মাইল (১০৪৬ কিলোমিটার) পূর্বে অ্যালেনের ডালাস-অঞ্চল নগরীর বাসিন্দা সে।

২১ বছর বয়সী এক তরুণকে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে এবং তিনিই একমাত্র হামলাকারী বলে মনে করা হচ্ছে। তাকে গ্রেপ্তারকারী পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রশংসা করেছেন মার্কিন জনপ্রতিনিধিরা।

সিসিটিভির ছবি বন্দুকধারীর বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। মার্কিন মিডিয়াতে সম্প্রচারিত ফুটেজে দেখা যায়, একটি কালো টি-শার্ট ও কানে প্রোটেক্টর পরা একজন তরুণ একটি অ্যাসল্ট রাইফেল হাতে শোরুমটিতে ঢুকছেন।

কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যম বলছে, গুলিতে আহত হয়ে স্থানীয় দু’টি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন অন্তত ২২ জন। এর মধ্যে ডেল সল মেডিক্যাল সেন্টারে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১১ জন। আর ইউনিভার্সিটি মেডিক্যাল সেন্টার অব এল পাসোতে ভর্তি আছেন বাকি ১১ জন। দুই হাসপাতালের মুখপাত্র ভিক্টর গোয়েরেরো এবং রায়ান মিয়েলক সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এদিকে, বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আহতদের চিকিৎসার জন্য জরুরি ভিত্তিতে রক্তের প্রয়োজন বলে টুইটে রক্তদাতাদের দ্রুত এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে এল পাসো পুলিশ ডিপার্টমেন্ট।

আরও পড়ুন