দুই শ্রমিক নিহত হওয়ার পর শিপ ইয়ার্ডটি বন্ধ

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলায় গত শনিবার বিকেলে দুর্ঘটনায় দুই শ্রমিক নিহত ও ১৩ শ্রমিক আহত হওয়ার ঘটনায় সেই জিরি সুবেদার জাহাজভাঙা কারখানাটির কার্যক্রম বন্ধ করেছে প্রশাসন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আজ রোববার বিকেলে কারখানাটি বন্ধ ঘোষণা করেন।

ইউএনও মিল্টন রায়  বলেন, আজ বেলা একটার দিকে শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে তাঁর কাছে ই-মেইল পাঠানো হয়। সেখানে জিরি সুবেদার জাহাজভাঙা কারখানাটির কার্যক্রম স্থগিতের নির্দেশ দেওয়া হয়। তাৎক্ষণিক বিষয়টি কারখানা কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, শিপব্রেকিং এবং রিসাইক্লিং আইন ২০১১ অনুসারে, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে নিরাপদ ও প্রশিক্ষিত শ্রমিকদের মাধ্যমে জাহাজকাটার নির্দেশনা দিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়। তবে শিল্প মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ না মানায় এ ধরনের দুর্ঘটনার ঘটছে। এতে দেশে ও বিদেশে জাহাজ পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প সম্পর্কে নেতিবাচক ধারণার তৈরি হচ্ছে। শিল্প মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুসরণ না করায় এ ধরনের দুর্ঘটনা ঘটছে। তাই আইনটির ৪৫ ধারা অনুযায়ী জিরি সুবেদার জাহাজভাঙা কারখানাটির কার্যক্রম বন্ধ করা হলো।

উল্লেখ্য, গত শনিবার বিকেলে উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ফুলতলা সাগরপাড়ে কারখানাটিতে এমভি ভার্জিন স্টার নামের একটি জাহাজ ভাঙার কাজ চলছিল। একপর্যায়ে কপিকলের সাহায্যে লোহার পাত টানার কেবল (ওয়্যার) ৫০ ফুট ওপরে তোলার সময় সেটি ছিঁড়ে যায়।এতে ১৫ শ্রমিক গুরুতর আহত হন। পরে তাঁদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে দুই শ্রমিক নিহত হন।

আরও পড়ুন