দোষারোপ করার পরিবর্তে পাশের ব্যক্তির জন্য কী করলাম সেই চিন্তা করি

কোভিড ভাইরাস সারা পৃথিবীকে যে পরিস্থিতির মুখোমুখি করে দিয়েছে, একজন ক্লিনিকাল মাইক্রোবায়োলজিস্ট এবং গবেষণা বিজ্ঞানী হিসাবে গত ৩৫ বছরে কখনোই এই ধরনের পরিস্থিতির মুখোমুখি হইনি। ২০২০ সালের জানুয়ারির শুরুর দিকে, আমরা সবাই এই ভাইরাসটিকে হালকাভাবেই নিয়েছিলাম। “এটি একটি সাধারণ  ফ্লু ভাইরাস”; “গ্রীষ্ম এটিকে  প্রতিহত করবে ” “কয়েক মাসের মধ্যে এটি অন্যান্য ভাইরাসের মতো মারা যাবে” – এই ধরনের কথাবার্তাই সেই সময় সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত হয়েছে। তারপরে যখন চীন এই ভাইরাসটির আসল চেহারা দেখতে পেল, সেই সময় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা সবাইকে সতর্ক করে ২০২০ সালের জানুয়ারির গোড়ার দিকে পুরো জিনোম এর সিকুয়েন্সটি  সকলের সাথে শেয়ার করেছিল। এর ফলশ্রুতিতে রেকর্ড সময়ে আমরা সকলেই ডায়াগনস্টিক পিসিআর পরীক্ষা সেটআপ করার সুযোগ পাই। রোগ এক দেশ থেকে অন্য দেশে এবং তারপরে মহাদেশগুলিতে ঝাঁপিয়ে পড়া শুরু করে। সংক্রমণ হার এবং মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিটি দেশে রেকর্ড হারে বাড়তে শুরু করে। একমাত্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, আমরা ৩০ মিলিয়নেরও বেশি রোগ সনাক্তকরণ এবং ৫ লাখ ৫৬ হাজারেরও বেশি মৃত্যুর খবর দেখেছি । বিশ্বজুড়ে বিজ্ঞানীরা SARS CoV-2 এর কদর্য মুখ দেখতে শুরু করে এবং তারা যা কিছু করতে পারে তার যথাসাধ্য চেষ্টা করে। আমার দীর্ঘ পেশাজীবনে আমি এই ভাইরাসটিকে বুঝতে এবং লড়াই করার জন্য এমন বৈজ্ঞানিক অগ্রগতি কখনই দেখিনি।

১৯৮৫ সালে বাংলাদেশের টেকনাফের পল্লী অঞ্চলে সংক্রামক রোগ নির্ণয়ের কাজ শুরু করি। ১৯৯৪ সালে জাপান থেকে মেডিকেল মাইক্রোবায়োলজিতে পিএইচডি করে পুরোপুরি নিজেকে ক্লিনিকাল মাইক্রোবায়োলজি এবং জনস্বাস্থ্যের সাথে নিযুক্ত করি। গত ২৪  বছর ধরে ব্রিটিশ কলম্বিয়া সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল পাবলিক হেলথ ল্যাবরেটরিতে ক্লিনিকাল মাইক্রোবায়োলজিস্ট হিসাবে কাজ করছি এবং অনেক প্রাদুর্ভাব যেমন ওয়েস্ট নাইল ভাইরাস, জিকা ভাইরাস, সিফিলিস, লাইম রোগের প্রতিরোধে কাজ করার  সুযোগ পেয়েছি। দীর্ঘ সময় ধরে উত্তর আমেরিকার অন্যতম সেরা জনস্বাস্থ্য পরীক্ষাগারে কাজ করার সুযোগ হয়েছে আমার। তবে আমি ভাবতেও পারি না যে গত ১৬ মাস ধরে আমরা কি অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি এই SARS CoV -2 ভাইরাস বা কোভিড -১৯ রোগ বা মহামারীর  জন্য।

আমার জানা মতে, ২০০টিরও বেশি প্রতিষ্ঠানএই ভাইরাসের একটি ভ্যাকসিন বের করার কাজে সক্রিয় হয়ে পড়ে। পৃথিবীর কয়েক মিলিয়ন চিকিৎসক এই রোগটি নিবারণের জন্য বিভিন্ন ওষুধের মিশ্রণ চেষ্টা করছিলেন এবং শত শত সংস্থা এই রোগ থেকে নিরাময়ের জন্য নতুন ওষুধ আবিষ্কার করার চেষ্টা করছে। এগুলি নিঃসন্দেহে অনুকরণীয়! ফলস্বরূপ, রেকর্ড সময়ে কয়েক শত পিসিআর, অ্যান্টিজেন এবং অ্যান্টিবডি পরীক্ষা আমাদের ব্যবহারের জন্য বাজারজাত করা হয়। ১৩টি ভ্যাকসিন ব্যবহারের জন্য জরুরি অনুমোদন পেয়েছে। চিকিত্সার জন্য অনেক পণ্য জরুরি অনুমোদন যেমন অ্যান্টিভাইরাল রিমিডিসিভির, monoclonal  অ্যান্টিবডি ভিত্তিক পণ্য যেমন রেজনারন; অনুসন্ধানী কনভলেসেন্ট প্লাজমা থেরাপি এবং তারা সংক্রামিত ব্যক্তিদের থেকে SARS CoV-২ ভাইরাস হ্রাস বা সম্পূর্ণরূপে হ্রাস করতে অত্যন্ত কার্যকর হয়ে ওঠে। যদিও এই সমস্ত প্রচেষ্টা যথাযথভাবে রয়েছে, তবে সময়মতো পাওয়া অনেকের জন্য  চ্যালেঞ্জ। উদাহরণস্বরূপ, যেভাবে ভ্যাকসিনটি নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশগুলিতে পৌঁছে যাচ্ছে এবং যদি আমরা কোনও সমস্যার  মুখোমুখি না হই; প্রত্যেককে টিকা দেওয়ার জন্য কমপক্ষে ২০২৩ পর্যন্ত সময় লাগবে। আমার মনে প্রশ্ন আসে,বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক লোকের জন্য দিনের শেষে যখন খাবার আনতে চ্যালেঞ্জ হয় তখন লোকেরা কীভাবে অত্যন্ত ব্যয়বহুল ডায়াগনস্টিক পরীক্ষা এবং পাশাপাশি ব্যয়বহুল চিকিৎসাগ্রহণ করতে পারে? এমনকি যদি সকলকে বিনা মূল্যে ঔষধ ও যাবতীয় হাসপাতালের সুবিধা সরবরাহ করা হয় তবে আমরা কী নিরাপদ থাকব?

 

সত্যটা কি? আমরা কি ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি? এর সহজ উত্তরটি হল না। ভাইরাসটি সবসময়ই আমাদের থেকে এক ধাপ এগিয়ে থাকছে। যখন আমরা ভেবেছিলাম আমাদের এই ভাইরাসের উপর একটি ভাল গ্রিপ রয়েছে তখন SARS CoV -২ বিভিন্ন রূপ (variant) তৈরি করে আরও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। এই রূপগুলি আরও সংক্রমণযোগ্য, এবং আরও ক্ষতিকারক, ক্ষেত্রবিশেষে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতাকে চ্যালেঞ্জ করতে সক্ষম। এই সমস্যা কি কেবল দরিদ্র এবং মধ্য আয়ের দেশে দেখছি? উত্তর না। বাংলাদেশের যেমন এই রোগের বিস্তৃতি হয়েছে বা হচ্ছে, তেমনি অনেক ইউরোপীয়, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা, উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার ধনী দেশগুলিরও একইভাবে বিস্তৃতি হয়েছে বা হচ্ছে যদিও এদের অনেক উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা রয়েছে। এই দেশগুলির অনেকগুলিই তৃতীয় বা চতুর্থ ওয়েভ এর মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। কাজেই দোষারোপের সময় এটা না। মূল কথা, আমাদের ভবিষ্যত গোলাপী বা রঙিন নয়, SARS CoV-২ তোয়াক্কা করে না আমরা  কারা, আমরা কোথায় থাকি, এবং আমরা কেমন দেখতে, আমাদের ধর্ম কী বা আমরা ধনী  না দরিদ্র।

যারা আমরা বিদেশে বাস করি, আমাদের সকলের হৃদয়ের একটি বড় অংশ সবসময় বাংলাদেশে ঘুরে বেড়ায় এবং আমরা আমাদের মাতৃভূমি, পরিবার এবং বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে সবসময় উদ্বিগ্ন থাকি। প্রতিদিন ফোনে যখন কারো মৃত্যুর সংবাদ শুনি, হাসপাতালে শয্যা পাওয়া যাচ্ছে না, মৃত্যুর সংখ্যা আবার বাড়ছে- এইসব খবর শুনি তখন মন  খুব খারাপ হয়ে যায়। বিশেষ করে যখন আপনি আপনার প্রিয়জন থেকে কয়েক হাজার মাইল দূরে থাকেন তখন সেই অনুভূতি আরো তীব্রতর হয়ে উঠে।

তাহলে এই পরিস্থিতিতে আমরা কি করবো? আমি মনে করি এখন আমাদের বেঁচে থাকার জন্য একসাথে লড়াই করার  সময় এসেছে। যেমন জেএফ কেনেডি একবার বলেছিলেন যে “আপনার দেশ আপনার জন্য কী করতে পারে তা জিজ্ঞাসা করবেন না – আপনি আপনার দেশের জন্য কী করতে পারেন তা জিজ্ঞাসা করুন” আমি তার প্রবাদটি বদলিয়ে বলবো, সরকারকে বা অন্য কাউকে দোষারোপ করার পরিবর্তে, আসুন আমরা সবাই -আমার জন্য কেউ  কিছু করলো কিনা তা চিন্তা না করে আমি আমার পাশের ব্যক্তির জন্য কি করলাম সেই চিন্তা করি। সবার প্রতি অনুরোধ, আসুন আমরা যথাযথ ভাবে মাস্ক  ব্যবহার করি এবং আমাদের সন্তান, পিতা-মাতা, ভাই-বোন, প্রতিবেশীদের একই কাজ করতে বাধ্য করি। একই সাথে আমরা হাত ধোয়া অনুশীলন করব এবং শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করি। সর্বোপরি, আসুন আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হই এই বিধিগুলি মেনে চলার জন্য।  মাস্ক এবং হাত ধোয়ার ব্যবহারগুলি খুব সহজ বলে মনে হলেও বিশ্বাস করুন, এই সাধারণ অনুশীলনটি আমাদের জন্য যাদুকর ফল দিতে পারে।

লেখক: ক্লিনিকাল মাইক্রোবায়োলজিস্ট
প্রবাসী ফেলো, বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমি

ইমেল: muhammad.morshed @bccdc.ca

 

 

আরও পড়ুন