নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধারের জের ধরে ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষ, আহত ১৫

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় প্রশাসনের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধারের জের ধরে বৃহস্পতিবার বিকালে পৌর শহরের গাজীটেকায় ব্যবসায়ীদের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। গুরুতর ৮ জনকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। আহত অন্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিচ্ছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন অব্যাহত রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীসহ বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, বুধবার উপজেলা প্রশাসন পৌরশহরে বিশেষ অভিযান চালিয়ে প্রায় ৭০ মণ নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধার এবং চারজন ব্যবসায়ীকে জরিমানা করে। পলিথিন উদ্ধারের এ ঘটনায় ব্যবসায়ীদের একপক্ষ আরেক পক্ষকে দোষারোপ করে।

এর জেরে পলিথিন ব্যবসায়ীদের একটি পক্ষ প্রশাসনকে তথ্য দেয়ার অভিযোগে বৃহস্পতিবার সকালের দিকে শহরের চৌমুহনী এলাকায় শামীম আহমদ (৪৫) নামক এক ব্যক্তির ওপর হামলা চালালে তিনি গুরুতর আহত হন। শামীম আহমদের ওপর হামলার খবর শুনে তার স্বজনরা বেলা দেড়টার দিকে ঘটনাস্থলে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এতে আহত হন শামীম আহমদের ভাই যুবলীগ নেতা জসিম উদ্দিন (৪০), এলাকার বাসিন্দা আবুল কালাম কাজল (৫৫), তানভির আহমদ (২৫) ও রায়হান আহমদ (২০), সিএনজি মালিক সমিতির সভাপতি সুমন আহমদ (৩২), আফসান আহমদ (২২), সেলিম আহমদ (২৯), ব্যবসায়ী আসাদ উদ্দিন, মিছবাহ উদ্দিন (২৮), নুরুল ইসলাম (২৬), মান্না মিয়া (২৩), শাহিন আহমদ (২৮), আবুল হোসেন (২৫)সহ উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন।

সংঘর্ষের খবর পেয়ে বড়লেখা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে যান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ। থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হককে সঙ্গে নিয়ে উভয়পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, ‘বুধবার কয়েকজন পলিথিন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টে জরিমানা মাধ্যমে করা হয়। এই অভিযানের জন্য ব্যবসায়ীরা একে অপরকে দোষারোপ করছিলেন বলে স্থানীয়ভাবে জানা গেছে। এ নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

 

আরও পড়ুন