পলাশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

এম,লুৎফর রহমান,নরসিংদী প্রতিনিধি ঃ

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়নের ৭ নং উত্তর দেওড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আওলাদ হোসেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতির স্বাক্ষর জাল,
বরাদ্দের টাকা নিজ ইচ্ছে মত খরচ করা, হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেই বিদ্যালয় ত্যাগ করাসহ নানা অভিযোগ করা হয়েছে লিখিত অভিযোগে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির একাংশ গত ৯ সেপ্টম্বর অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও পলাশ উপজেলা চেয়ারম্যান বরাবর এসব বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। তবে এসব অভিযোগকে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অংশ বলছেন অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আওলাদ হোসেন। লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, প্রধান শিক্ষক
আওলাদ হোসেন প্রতিদিন বিদ্যালয়ে এসেই হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে চলে যান। প্রধান শিক্ষকের গুরুত্বপূর্ণ ৩ টি কাস নেয়ার নিয়ম থাকলেও তিনি তা করেন না। সরকারি নিয়মে বিভিন্ন পরীক্ষার ফি শ্রেণিভিত্তিক নির্ধারিত থাকলেও তিনি অতিরিক্ত ফি আদায় করে থাকেন। প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের বিভিন্ন খাতের বরাদ্দের টাকা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির কাউকে না জানিয়ে তা নিজের ইচ্ছেমতো খরচ করেন এবং খরচের কোনো বিল, ভাউচার পরিচালনা কমিটিকে অবগত করেন না।

এছাড়া বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আওলাদ হোসেন প্রায়ই সভাপতির স্বাক্ষর নকল করে অফিসিয়াল বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করেন এবং এসপিএলআই’র বরাদ্দের টাকা উত্তোলন করেন। এসব বিষয়ে বিভিন্ন সময় পরিচালনা কমিটির সদস্য প্রধান শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে তিনি কাউকে তোয়াক্কা না করে এড়িয়ে যান। এতে করে এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার মান উন্নয়নে বিঘ্ধসঢ়;ন ঘটছে। অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) এই প্রতিবেদক সরেজমিনে ওই বিদ্যালয়ের অভিভাবক,
পরিচালনা কমিটির সদস্য ও স্থানীয়রা জানান, ৭ নং উত্তর দেওড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আত্তলাদ হোসেনের বাড়ি একই গ্রামে হওয়ায় তিনি ক্ষমতার দাপট দেখান।

তিনি কোন নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে নিজের ইচ্ছামতো দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যালয় পরিচালনা করে আসছেন। এসব বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যানের নিকট লিখিত অভিযোগ দেয়ার পর তিনি বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে দায়িত্ব দেন। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক আওলাদ হোসেন এসব অভিযোগ মিথ্যা দাবী করে বলেন, একটি মহল আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।

এ ব্যাপারে পলাশ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মাহফুজা খান ইউসুফজী বলেন, উত্তর দেওড়া সরকারি প্রাথমিক
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আওলাদ হোসেন বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন