প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে দিবে বলে নিজেই ধর্ষণ করল ভাতিজিকে

ঢাকার ধামরাইয়ে ৮ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করছে তার আপন ফুপা। প্রেমিকের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার কথা বলে বাড়িতে ডেকে এনে ছাত্রীকে ধর্ষণ করে ওই লম্ট ফুপা। এ ঘটনায় রবিবার (২৫ আগস্ট) রাতে ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে দু’জনের বিরুদ্ধে ধামরাই থানায় মামলা করেছেন। ধামরাই থানার এসআই আবুল কালাম আজাদ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন আসামিদের ধরতে চেষ্টা চলছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ভুক্তভোগী ছাত্রী ও তার মা থানায় এসে লিখিত অভিযোগ করেছেন। এ ঘটনায় দুইজনকে আসামি করা হয়েছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

অভিযুক্তরা হলেন- ধামরাইয়ের সূয়াপুরে ঘোড়াকান্দা গ্রামের মৃত হায়দার আলীর ছেলে ও নির্যাতিতার আপন ফুপা আলমগীর হোসেন (৪৫) এবং ওই কিশোরীর প্রেমিক নাহিদ হোসেন (২২)। সে একই গ্রামের আবুল হোসেনের পুত্র।

নির্যাতনের শিকার ওই ছাত্রীর মা বলেন, গত ২১ আগস্ট প্রেমিক নাহিদের সঙ্গে বিয়ে দেয়ার নাম করে তার মেয়েকে ফুপা আলমগীর নিজ বাড়িতে ডেকে নেয়। এরপরে ঘরের দরজা বন্ধ করে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সে। এছাড়া প্রেমিক নাহিদও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এর আগে আমার মেয়ের সাথে শারীরিক সম্পর্ক করেছে। বলেন, ভুক্তভোগী কিশোরীর অসহায় মা।

এ বিষয়ে খালা রাবেয়া বেগম বলেন, বরর্বোচিত এ ঘটনার পর ফুপা আলমগীর ভুক্তভোগীকে বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে যায়। এই ঘটনার দুই দিন পর আবারও ফুপা আলমগী কৌশলে নিয়ে যেতে চাইলে পুরো বিষয়টি তার মাকে খুলে বলে ভুক্তভোগী ছাত্রী।

এ ঘটনাটি স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে জানালে এ ব্যাপারে তারা কোনো গুরুত্ব দেননি। পরে ধামরাই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, নির্যাতনের শিকার কিশোরীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য সোমবার (২৬ আগস্ট) মেয়েটিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে (ঢামেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) সেন্টারে পাঠানো হবে।

আরও পড়ুন