বাংলাদেশে আবিষ্কৃত ভ্যাকসিনের প্রাথমিক ট্রায়াল শেষ, এবার মানবশরীরে প্রয়োগ

গ্লোব বায়োটেক নামের একটি বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠান করোনা প্রতিরোধী সম্ভাব্য যে টিকা তৈরি করছে, সেটি এখন ‘রেগুলেটেড অ্যানিমেল ট্রায়ালের’ পর্যায়ে আছে। এটি শেষ হলে কোম্পানিটি হিউম্যান ট্রায়ালের প্রস্তুতি নিতে চায়।

নিজেদের তৈরি করোনা প্রতিরোধী সম্ভাব্য টিকা দিয়ে খরগোশের ওপর ‘প্রিলিমিনারি ট্রায়াল চালিয়ে সফল’ হওয়ার দাবি করেছেন গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের কর্মকর্তারা।

বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) সংবাদ সম্মেলনে তারা টিকার বিস্তারিত তুলে ধরেন। এই টিকা আবিষ্কারের সার্বিক তত্ত্বাবধানে আছেন প্রতিষ্ঠানের সিইও ড. কাকন নাগ এবং সিওও ড. নাজনীন সুলতানা।

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের রিসার্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রধান ডা. আসিফ মাহমুদ বলেন, ‘প্রিলিমিনারি অ্যানিমেল ট্রায়াল শেষ হয়েছে।

একটা রেগুলেটেড অ্যানিমেল ট্রায়াল হবে, যাতে আমরা হিউম্যান ট্রায়ালে যেতে পারি।’ বৈশ্বিকভাবে নিজেদের অবস্থানের কথা উল্লেখ করে আসিফ বলেন, ‘গোটা পৃথিবীতে বিভিন্ন কোম্পানির ১৪০টি ভ্যাকসিন ট্রায়ালে আছে।

এর মধ্যে প্রথম ধাপে আছে ১১টি কোম্পানি। দ্বিতীয় ধাপে আটটি। তৃতীয় ধাপে তিনটি। আর অনুমোদন পেয়েছে একটি কোম্পানি।’

 

আরও পড়ুন