বিস্ময় বালক ১২ বছরের হাসান আলী

সিভিল, মেকানিক্যাল ও ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্রছাত্রীদের পড়ানোর জন্য হাসান আলী (১২) নামের বিস্ময় বালক তৈরি করেছে রোবট। তবে হাসানের তৈরি রোবট শুধু ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ুয়াদের নয়, বয়স্ক থেকে শুরু করে গৃহস্থদেরকে সহজেই শিক্ষাদানে সহায়ক।

মো. হাসান আলী নামে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রটির তৈরি রোবট ইঞ্জিনিয়ার পড়ুয়াদের পাঠশিক্ষা দেওয়ায় তাকে ঘিরে ব্যাপক উন্মাদনা তৈরি হয়েছে শিক্ষা মহলে।

হাসান সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে, এই রোবটটি তৈরি করতে তার সময় লেগেছে মাত্র ১৫ দিন। এই রোবট মুখে নির্দেশ দিলে তা পালন করতে পারে। যদিও এর অটোমেটিক মোড রয়েছে। এ ব্যাপারে হাসান জানিয়েছে, ইন্টারনেটের বিষয়টি রোবটের মাধ্যমে শিক্ষা দিই।

রোবটের মাধ্যমে ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ার পড়ুয়াদের ডিজাইনিং ড্রাফটিং এ বিষয়টি শেখাই। আমার শতাধিক প্রজেক্ট এর মধ্যে একটি হলো রোবট। এইসব প্রজেক্ট করতে গিয়ে মাথায় আছে রোবট তৈরির কথা। তখন ঐ রোবট তৈরিতে লেগে যায়। ক্ষুদে বিজ্ঞানী হাসান আরো জানিয়েছে, রোবট শুধু ইন্জিনিয়ারিং পড়ুয়াদের শিক্ষাদানে সীমাবদ্ধ নয়। এটা যেমন মানুষের কাজে লাগবে, তেমনি হোটেলে, রেস্ত্ররাতেও এটিকে ব্যবহার করা যাবে। প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করার ক্ষেত্রে বিটেক ও এমটেক পড়ুয়াদের এই রোবটটি কাজে লাগলেও দেশের জন্য আরও কিছু করার জন্য প্রতিজ্ঞা হায়দ্রাবাদের এই বিস্ময় প্রতিভা মুহাম্মদ হাসান আলী।

আরও পড়ুন