মনিরুলের বাসর ঘর থেকে শ্রীঘরে যাওয়ার গল্প

বিয়ের পর নববধূকে নিয়ে বাসরের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন বর মনিরুল ইসলাম আলিফ। ঠিক এমন সময় ঘটে বিনা মেঘে বজ্রপাত! এসে হাজির পুরনো প্রেমিকা! শেষমেশ তাকে ধর্ষণের অভিযোগে আলিফকে থানায় নেয় পুলিশ। অধরা থেকে যায় তার বাসর। সাভার পৌর এলাকার ভাগলপুর মহল্লায় শুক্রবার রাত ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

গ্রেফতারকৃত যুবক মনিরুল ইসলাম আলিফ (৩০) সাভারের ভাগলপুর এলাকার শাহ আলমের ছেলে।

পুলিশ জানায়, আলিফের সঙ্গে গার্মেন্টস কর্মী ওই তরুণীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে তাকে বিয়ের প্রলোভনে প্রায় আড়াই বছর স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে তারা একটি বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতো।

এদিকে প্রেমিকাকে না জানিয়ে বাবা-মায়ের কথায় শুক্রবার রাতে বিয়ের পিঁড়িতে বসে আলিফ। নিয়ম অনুযায়ী সকল আয়োজন সম্পন্ন করে নববধূকে ঘরেও তোলেন। এরই মধ্যে ওই তরুণী বিষয়টি জানতে পেরে আলিফের বাসায় ছুটে যান। সেখানে গিয়ে ঘটনার সত্যতা দেখে প্রতিবাদ করলেও ন্যায় বিচার না পেয়ে ধর্ষণের অভিযোগের সাভার মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

ভুক্তভোগী তরুণীর লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে রাতেই সাভার মডেল থানার ওসি (অপারেশন) জাকারিয়া হোসেন এবং ওসি (ইন্টিলিজেন্স) মো. মাসুদ তাৎক্ষনিক ভাবে ঘটনার তদন্তে আলিফের বাসায় যান। এ সময় আলিফ ও ওই তরুণীকে থানায় নিয়ে আসেন। সাভার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এএফএম সায়েদ বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে আলিফ তার বিরুদ্ধে দায়ের করা অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেন। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া অভিযোগকারী ওই তরুণীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন