যমুনারপানি আবারও বৃদ্ধি সিরাজগঞ্জে বন্যার আশঙ্কা

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

গত ১০ দিন পর আবারও উজানের পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণে সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১২ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার ২৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

পানি বৃদ্ধির কারণে নতুন করে বন্যার আশঙ্কা করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। এতে জেলার ১ লাখ ৬০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

শনিবার (১১ জুলাই) সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রনজিৎ কুমার সরকার এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীতে পানি বেড়েছে। বন্যার পূর্বাভাস অনুযায়ী যমুনা নদীতে পানি বেড়ে বিপদসীমা অতিক্রম করে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হবে।

তবে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। বাঁধ না ভাঙ্গলে শহরে বন্যা হওয়ার আশঙ্কা নেই। তবে নদী-তীরবর্তী কাজিপুর, সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, শাহজাদপুর ও চৌহালী উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বন্যা হতে পারে।

এদিকে, প্রথম দফায় বন্যায় বাঁধে আশ্রয় নেওয়া মানুষ এখনো বাড়িঘরে ফিরতে পারেনি। নতুন করে পানি বৃদ্ধির কারণে দুর্ভোগে পড়েছে বানভাসি মানুষ।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে জেলার ১ লাখ ৬০ হাজার মানুষ। নদী-তীরবর্তী এলাকা ও চরাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পাঁচ উপজেলার প্রায় ৩৩ ইউনিয়নের ২১৬টি গ্রামের এক লাখ ৬০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। তলিয়ে গেছে প্রায় ৩ হাজার ৫৬৫ হেক্টর
জমির ফসল।

এ ব্যাপারে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম বলেন, যমুনার নদীতে পানি বৃদ্ধির কারণে জেলার পাঁচ উপজেলার ৩৩ ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এসব এলাকার ২১৬টি গ্রামের ৩৪ হাজার ৬৮৪টি পরিবারের ১ লাখ ৬০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১ হাজার ৬০টি ঘর-বাড়ি, সাড়ে ১৬ কিলোমিটার রাস্তা ও বাঁধ তলিয়ে গেছে। এ ছাড়া সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৩০টি শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান।

আরও পড়ুন