শেরপুরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৭

শেরপুর জেলা হাসপাতালে মঙ্গলবার (৩০ জুলাই ) দুপুর পর্যন্ত আরও ২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। এরা হলেন, শহরের গৌরিপুর এলাকার ছাত্র মো. রুকন মিয়া (২৪) এবং নকলার গার্মেন্ট কর্মী গোলাপী বেগম (৩২)। এনিয়ে শেরপুরে এ পর্যন্ত ১৭ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছে। বর্তমানে জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৭ জন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং করতে গিয়েছিলেন রুকন মিয়া। সেখানে জ্বরে আক্রান্ত হন। এরপর মঙ্গলবার (৩০ জুলাই ) সকালে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। অপরদিকে গার্মেন্টে কাজ করা গোলাপী বেগমও ঢাকা থেকে জ্বর নিয়ে সোমবার বিকেলে শেরপুর জেলা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এদিকে, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত শহরের সজবরখিলা এলাকার রাজন দাস ৬ দিন চিকিৎসার পর সুস্থ্য হলে সোমবার হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়।

জেলা হাসপতালের মেডিসিন কনসালট্যান্ট ডা. নাদিম হাসান বলেন, ভর্তিকৃত ডেঙ্গু রোগীরা সবাই ঢাকা থেকে জ্বরে আক্রান্ত হয়ে শেরপুর আসার পর রক্তের পরীক্ষায় ডেঙ্গু ধরা পড়েছে। গত দুই সপ্তাহে জেলা হাসপাতালে ১৭ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত ও চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শেরপুরে ডেঙ্গু পরীক্ষার সব ধরনের সুবিধা রয়েছে বলেও তিনি জানান।

জেলা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. খাইরুল কবির সুমন বলেন, প্রতিদিনই ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হওয়ায় শেরপুর জেলা হাসপাতালে ৮টি শয্যা নিয়ে আলাদা ইউনিট খোলা হয়েছে।

সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. মোবারক হোসেন বলেন, মানুষের মত ঢাকা থেকে গাড়ির মাধ্যমে যাতে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এডিস মশা ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে বিষয়ে শতর্ক থাকতে হবে। এজন্য ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা সব গাড়িতে এডিস মশা নিরোধী স্প্রে করা প্রয়োজন।

আরও পড়ুন