সাব্বির রহমাকে কেন টি২০ স্পেশালিস্ট তকমা?

সব্বির রহমান বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দলে খেলছেন পাঁচ বছর। এই পাঁচ বছরে তিনি ম্যাচ খেলেছেন ৪৩টি আর এই ৪৩টি ম্যাচে তার হাফসেঞ্চুরি আছে ৫টি সেখানে গড় রান মাত্র ২৫। তবে এই সাব্বির রহমানকে বিসিবির নির্বাচকরা দিয়ছেন টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্টের তকমা। তবে ওয়ানডে ফরমেটের মতোই টি-টোয়েন্টি ফরমেটে তিনি নাকি ক্যাপ্টেন চয়েজ!

আফগানদের সাথে মিরপুর শেরে বাংলায় সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ২৫ রানে হেরেছে টিম-টাইগাররা। আর সেই ম্যাচে ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে সাব্বির রহমান দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহক ছিলেন। তার পরও কি করে তার সমালোচনা করা যায় কিন্তু দেশের ভালো ক্রিকেট কিংবা ভালোর জন্য সমালোচনা প্রয়োজন।

আধুনিক টি-টোয়েন্টির সময়ে ২৭ বলে ২৪ রান এই সংখ্যা প্রমান করে খেলাটি দলের জন্য নয়, নিজের জন্যই।

সাব্বির রহমানের পরিসংখ্যানের দিকে তাকালে দেখা যাবে টেস্ট, ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টি এই তিন ফরমেটেই তার রানের গড় প্রায় ২৫। এই পরিসংখ্যান দেখে তাকে টি-টোয়েন্টি স্পেশালিষ্ট বলা এক প্রকার আত্মহত্যার শামিল। এমনটাই বলছে ক্রিকেট বিশ্লেষকরা। তাহলে কি করে এতো দিন থাকছে টাইগার একাদশে? এ রকম প্রশ্ন নির্বাচকদের করা হলে তারা অবশ্য বলছেন ক্যাপ্টেন চয়েজ।

এদিকে আফগানদের বিপক্ষে ২৫ রানে হারার পর অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে প্রশ্ন করা হয়েছিলো সাব্বিরের বিষয় নিয়ে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সাকিব বলেন, ‘দেখুন স্বাভাবিকভাবেই দল যখন সিলেক্ট করা হয়। সবাই বিশ্বাস করে ঐ প্লেয়ারকে নেয়। যে সে দলের জন্য কন্টিবিউট করবে। দলের ভালো কিছুতে সাহায্য করবে কিন্তু অনেক সময় সেটা হয় আবার অনেক সময় হয় না। না হলে সমালোচনা হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আমাদের দায়িত্ব সবাইকে ব্যাক করানো। যেহেতু আমাদের আরো দুইটি ম্যাচ আছে। জিতলে আমাদের ফাইনাল আছে। আমারা যদি এই সিরিজটা ভালোভাবে শেষ করতে পারি। তারপর এগুলো নিয়ে আলোচনা করে ভালোভাবে সামনের দিকে আগাতে পারি।’

টি-টোয়েন্টি অধিনায়াকরে আবাস চলতি সিরিজ শেষ হলেই অনেক কিছু তো আসতে পারে রদবদল। সেই রদবদলে কি কাটা পড়বেন সাব্বির? নাকি বাকি দুই ম্যাচে দুর্দান্ত কিছু করে জাতীয় দল একটা শক্ত ঢাল বানাবেন তিনি।

আরও পড়ুন