স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্ধার, পিতা গ্রেফতার

রাজবাড়ীর পাংশা মডেল থানা পুলিশ তামীম নামের এক স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে। এ ঘটনায় পিতা জড়িত সন্দেহ তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পাংশা মডেল থানা পুলিশ।

সোমবার রাত ২টার দিকে ঘরে পানি খাওয়ার পরপরই অসুস্থ হয়ে পড়ে। হাসপাতালে নেয়া হলে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করে।

জানা গেছে, তামিম (৮) মৌরাট ইউপির খান্দুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২য় শ্রেণির ছাত্র ও মৌরাট গ্রামের শরিফুল ইসলাম অরফে শরিফের ছেলে।

নিহত স্কুল ছাত্রের নানা হাশেম আলী জানান, রাতে তামীম আর তার পিতা শরীফ ঘরে টিভি দেখছিল এ সময় তামীম পানি খেতে চাইলে তার পিতা তাকে পানি খাওয়ায় এ সময় তামীমের মা ঘুমিয়ে ছিল। পানি খাওয়ার পরপরই তামীম অসুস্থ হয়ে পড়ে তাৎক্ষনিক তামীমকে পাংশা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয় এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে এ ঘটনায় পাংশা মডেল থানা পুলিশ তামীমের পিতা শরিফুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে সন্দেহ বসত। এ ঘটনায় তামীমের মামা সজিব বাদী হয়ে পাংশা থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছে।

পাংশা থানার এস আই আমিরুল ইসলাম বলেন, ছেলে তামীম হত্যার সাথে জড়িত সন্দহে ৫৪ ধারায় পিতা শরিফুল ইসলামকে গ্রেফতার দেখিয়ে রাজবাড়ী জেলা হাজতে পাঠানো হয়েছে।

ময়না তদন্তের রির্পোট এলেই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। একটি সূত্র জানিয়েছেন তামীমের পিতা শরীফুল ইসলাম মাদকাশক্ত ছিলেন। পানির সাথে কিছু মিশে গিয়েছিল কি না এ নিয়ে চলছে জলপনা কল্পনা। হত্যা নাকি স্বাভাবিক মৃত্যু এ নিয়ে এলাকায় চলছে নানা জলপনা কল্পনা।

আরও পড়ুন