সড়কের অর্ধেক মেট্রোরেলের দখলে

ফুটপাত কোথাও বন্ধ, কোথাও আবার হকারের দখলে। এরই মধ্যে মেট্রোরেলের দখলে সড়কের বেশির ভাগে জায়গা। ফলে প্রতিদিন এসব রাস্থায় ভোগান্তির শেষ নেই পথচারীদের।

জানা যায়, মেট্রোরেলের কাজের জন্য রাস্তার সিংহভাগ ঘিরে রাখায় অবশিষ্ট যেটুকু চলাচলের উপযোগী সেটুকু দিয়ে কোনোমতে শুধু একটি বাস চলাচল করতে পারে। কাজেই আগের মতো পথচারীরা রাস্তা দিয়ে চলাচলের পর্যাপ্ত জায়গা পান না। আবার ফুটপাতও হকারদের দখলে। এমন অবস্থায় ঝুঁকির মুখে রয়েছেন পথচারীরা।

নগরবাসী বলছেন, অন্তত যেসব জায়গা মেট্রোরেলের কাজ হচ্ছে সেই সব জায়গার ফুটপাতগুলোতে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে দখলমুক্ত করা উচিত।

তারা বলছেন, দুই মেয়রই ফুটপাত দখলমুক্ত করার কথা বললেও আদতে তারা এই কাজটি করতে ব্যর্থ হয়েছেন।

ঢাকার সবচেয়ে ব্যস্ত সড়কগুলোতেই চলছে মেট্রোরেলের (ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট বা এমআরটি) কাজ। উত্তরা-মিরপুর-আগারগাঁও-ফার্মগেট-শাহবাগ-বাংলা একাডেমি-মতিঝিল অংশে নির্মিত হচ্ছে দেশের প্রথম এ মেট্রোরেল। মেট্রোরেলের নির্মাণকে ঘিরে এ ধরনের দুর্ভোগ একটু সচেতন থাকলেই এড়ানো যেতো বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এক্ষেত্রে তারা দুর্বল ব্যবস্থাপনাকেই দায়ী করছেন। মেট্রোরেলের মতো এত প্রযুক্তিনির্ভর একটি প্রকল্পে এ ধরনের দুর্বল ব্যবস্থাপনা কাম্য নয় বলে মনে করেন তারা।

গণপরিহবণ বিশেষজ্ঞ ড. সালেহ উদ্দিন বলেন, মেট্রোরেলের কাজ দেখে মনে হচ্ছে কি বিশাল কর্মযজ্ঞ। কিন্তু আদতে এত বিশাল জায়গা একেবারে ঘিরে নিয়ে জনভোগান্তি তৈরি না করলেও চলত।

সরেজমিনে দৈনিক বাংলা মোড় থেকে প্রেসক্লাব পর্যন্ত দেখা যায়, রাস্তার দুই পাশ দিয়ে কোনোমতে একটি করে গাড়ি পাস হয়। পুরো এলাকায় যানজট লেগেই থাকে। দৈনিক বাংলা মোড় থেকে বায়তুল মোকাররম হয়ে পল্টন পর্যন্ত ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করছে হকাররা। ফলে পথচারীদের হাঁটার জায়গা নেই। সেক্ষেত্রে পথচারীদের হাঁটার জায়গা নিশ্চিত করা খুবই জরুরী বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া সচিবালয় ও প্রেসক্লাবের উল্টাপাশের ফুটপাতও মেট্রোরেল ঘিরে রেখেছে। ফলে রেস্টুরেন্টসহ অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান একরকম বন্ধ হওয়ার পথে।

কাওরান বাজারের আন্ডারপাসের মুখটি ছিল পার্শ্বরাস্তা ও মূল সড়কের মধ্যের ফুটপাতে। মেট্রোরেলের কারণে যান চলাচলের পথ সংকুচিত হয়ে আসায় ফুটপাত ভেঙে পার্শ্বরাস্তাটি মূল রাস্তার সঙ্গে মিলিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে আন্ডারপাসটি পড়ে গেছে ব্যস্ত রাস্তার ঠিক মাঝখানে। আন্ডারপাস থেকে বেরিয়ে ঝুঁকি নিয়েই রাস্তা পার হচ্ছে মানুষ। এর আগে একজন দুর্ঘটনায় মারাও গেছে। মেট্রোরেলের কাজে ফার্মগেট-মতিঝিল সড়কের অনেকগুলো স্থানে ফুটপাত এখন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। যদিও পথচারী চলাচলের জন্য নিরাপদ কোনো বিকল্প ব্যবস্থা রাখা হয়নি।

আরও পড়ুন