১৩ মুসলিম দেশের জন্য আমিরাতের ভিসা নিষেধাজ্ঞা: মূল উদ্দেশ্য আসলে কী?

১৩টি মূলত মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশের নাগরিকদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে সংযুক্ত আরব আমিরাত যেসব বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, তার মূল উদ্দেশ্য আসলে কী?

সংযুক্ত আরব আমিরাতের জারি করা এই নিষেধাজ্ঞার কথা নিয়ে আলোচনা চলছে এমন এক সময়, যখন বৃহস্পতিবার দেশটির সঙ্গে ইসরায়েলের সরাসরি বিমান যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

দুবাই থেকে ‘ফ্লাই-দুবাই’ এয়ারলাইন্সের প্রথম ফ্লাইটটি বৃহস্পতিবার তেল আবিবের উদ্দেশে উড়ে যায়। সেখানে এটিকে স্বাগত জানিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। দুই দেশের মধ্যে স্বাভাবিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হওয়ার পর এটি এ ধরণের প্রথম সরাসরি বাণিজ্যিক ফ্লাইট।

 

যেদিন এই ফ্লাইট চলাচল শুরু হল, সেদিনই রয়টার্স বার্তা সংস্থার এক খবরে বলা হচ্ছে, ১৩টি দেশের নাগরিকদের বেলায় ইউএইর ভিসা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ শুধু ভ্রমণ ভিসার বেলায় নয়, কর্মসংস্থান ভিসার ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করা হচ্ছে।

এই ১৩টি দেশের মধ্যে আছে: ইরান, তুরস্ক, সিরিয়া, সোমালিয়া, আলজেরিয়া, কেনিয়া, ইরাক, লেবানন, পাকিস্তান, তিউনিসিয়া, আফগানিস্তান, লিবিয়া এবং ইয়েমেন। এর মধ্যে কেবলমাত্র কেনিয়া ছাড়া প্রত্যেকটি দেশই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ। কিছু কিছু দেশের সঙ্গে রয়েছে ইরানের সঙ্গে খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক।

কেন সংযুক্ত আরব আমিরাত এই নিষেধাজ্ঞা জারি করল, সেটা তারা পরিষ্কার করে বলছে না। কাজেই এটা নিয়ে অনেক রকম জল্পনা চলছে।

যেসব দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেসব দেশের বহু মানুষ সংযুক্ত আরব আমিরাতে কাজ করে। বিশেষ করে পাকিস্তান, ইরান, সিরিয়া, লেবানন এবং আফগানিস্তানের।

কোন কোন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ধারণা করছেন, এর পেছনে হয়তো নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগ কাজ করছে, বিশেষ করে সম্প্রতি সৌদি আরবে ফরাসী দূতাবাসে হামলার ঘটনার পর। কিন্তু এই যুক্তি অনেকে মানতে পারছেন না, কারণ সেই হামলায় জড়িত ছিল এক সৌদি নাগরিক। অথচ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এমন সব দেশের বিরুদ্ধে, যাদের বেশিরভাগ ইরানের ঘনিষ্ঠ মিত্র বলে পরিচিত বা যাদের সঙ্গে ইরানের উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক আছে।

শুধু তাই নয়, এই ১৩টি দেশের মধ্যে ১১টি দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের সমালোচনা করেছে। কোনও কোনও দেশ বেশ তীব্র ভাষায়।

১৩টি দেশের বিরুদ্ধে সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) এই নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে কী তাহলে ইসরায়েলের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক স্বাভাবিক করার একটা সম্পর্ক আছে?

আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ এবং নিরাপত্তা বিষয়ক বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল মুনীরুজ্জামান মনে করেন, এরকমটা সন্দেহ করার যথেষ্ট কারণ আছে।

এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “এই ১৩টি দেশের কিছু দেশে হয়তো সন্ত্রাসবাদ একটা মূল সমস্যা হতে পারে। তবে একই সঙ্গে দেখা যাচ্ছে, এমন কয়েকটি দেশ আছে, যেখানে সন্ত্রাসবাদ বড় সমস্যা নয়। তবে এসব দেশের কেউই ইসরায়েলের সুনজরে নেই।”

“আমরা জানি যে অতি সম্প্রতি ইসরায়েলের সঙ্গে ইউএইর সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে। কাজেই এই নিষেধাজ্ঞার পেছনে ইসরায়েলের কোনও প্রভাব আছে কি না, সে প্রশ্ন অনেক বিশ্লেষকের মনে জাগছে। তবে এখনও পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট কিছু জানা যায়নি।”

নিরাপত্তা না রাজনীতি?

এই নিষেধাজ্ঞার কারণ কী এটা হতে পারে যে, এরা ইসরায়েলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক স্থাপনের জন্য ইউএই’র সমালোচনা করেছে?

জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলেন, “অনেকেই ধারণা করছেন, এই সিদ্ধান্তের পেছনে ইসরায়েলের একটা প্রভাব বা হাত আছে। অতি সম্প্রতি ইউএই যখন ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে, তারপর থেকে তাদের সম্পর্ক খুব দ্রুত গভীর হচ্ছে। এক্ষেত্রে ইসরায়েল ইউএইর ওপর প্রভাব বিস্তার করে তাদের সুনজরে নেই এমন দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা করাচ্ছে কি না, সেটা একটা সম্ভাবনা। তবে সুনির্দিষ্টভাবে কোন কিছু বলা সম্ভব নয়।”

ইউএই যে ইসরায়েলের সঙ্গে কেবলমাত্র কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে তা নয়। একই সঙ্গে তারা বিমান চলাচল, পর্যটন, নিরাপত্তা, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং দুই দেশের নাগরিকদের ভিসা ছাড়া পরস্পরের দেশে ভ্রমণের মতো সহযোগিতার দিকে যাচ্ছে।

এ অবস্থায় ইসরায়েল কি তাদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগ থেকে এরকম একটা অনুরোধ জানিয়ে থাকতে পারে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে?

জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলেন, ইসরায়েলের সঙ্গে ইউএ’র যে সম্পর্ক, সেটা হঠাৎ গড়ে উঠেছে ভাবা ঠিক হবে না। এর জন্য পর্দার অন্তরালে কাজ চলছে অনেকদিন ধরে এবং যেসব নিরাপত্তার ঝুঁকি আসতে পারে, সেগুলো অনেক বিচার-বিবেচনা করেই ইসরায়েল অগ্রসর হয়েছে। হয়তো সেগুলো সম্পূর্ণভাবে বিশ্লেষণ করেই ইউএই এধরণের ভিসা ব্যবস্থা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে।

“ইসরায়েল মনে করছে, যদি ইউএইর সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে তারা সাফল্য দেখাতে পারে, তাহলে অন্যান্য মুসলিম দেশকেও তারা আকৃষ্ট করতে পারবে। বিশেষ করে যদি অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে এই সম্পর্ক সফল হয়। একারণেই দেখা যাচ্ছে, বাণিজ্য, যাতায়ত, এসব ক্ষেত্রে, পর্যটনের ক্ষেত্রে তারা দুদেশের মধ্যে তাদের দ্বার উন্মুক্ত করার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। আমার বিশ্বাস, তাদের নিরাপত্তার ঝুঁকি বিশ্লেষণ করেই তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

অনেকের ধারণা, যেসব দেশের বিরুদ্ধে ইউএই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেখানে ইরান একটা বড় কারণ। এসব দেশে হয় ইরানের উল্লেখযোগ্য কৌশলগত স্বার্থ আছে, অথবা তাদের সঙ্গে ইরানের ভালো সহযোগিতামূলক সম্পর্ক আছে। কিংবা এসব দেশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় শিয়া মুসলিমরা আছে।

অন্যদিকে সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ইসরায়েল, উভয়ের সঙ্গেই ইরানের সম্পর্ক খুবই বৈরি। নিষেধাজ্ঞা জারির ক্ষেত্রে এটাও কি একটা কারণ?

জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলছেন, ইরান যে এই সিদ্ধান্তের কেন্দ্রে, সেই ধারণা তিনি নাকচ করে দিতে পারছে না।

“আপনি যদি এই দেশগুলোর তালিকার দিকে তাকান, দেখবেন এসব দেশ ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখছে। অনেক ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ এবং বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে। কাজেই ইরান যে একটা কারণ, তা মনে করলে সেটা একেবারে ভুল হবে না আমাদের বিশ্লেষণে। ইরানকে একঘরে করার জন্য ইসরায়েল সবসময় কাজ করে এসেছে। যেখানেই সম্ভব, সেখানেই তাদের এক ঘরে করছে।”

তবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের এই ১৩টি দেশের তালিকায় বাংলাদেশের নাম নেই, যদিও বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক মানুষ সেদেশে কাজ করেন।

জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশ এই তালিকায় না থাকাতে তিনি খুব অবাক হননি।

“যে ধরণের সন্ত্রাসবাদী তৎপরতাকে নিরাপত্তা ঝুঁকি বলে বিবেচনায় নেয়া হয়, ইদানিংকালে বাংলাদেশে সেরকম বড় কোন সন্ত্রাসবাদী কাণ্ড ঘটেনি। সেই বিবেচনায় বাংলাদেশ এই তালিকায় আসেনি। এর পাশাপাশি, ইরানের সাথে বাংলাদেশের এখন যে সম্পর্ক আছে, সেটাও খুব গভীর নয়। কাজেই ইরানের সঙ্গে সম্পর্কের বিবেচনায় দেখতে গেলেও বাংলাদেশ এই তালিকায় না থাকাটা আশ্চর্যের বিষয় নয়।”

জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলেন, “বর্তমানে ইউএই-তে যে বাংলাদেশিরা আছে, যারা সেখানে কাজ করছে, তাদের অনেক সুনাম রয়েছে। সেদিক থেকে দেখলেও দেখা যায়, বাংলাদেশ এই তালিকায় না থাকায় আমি খুব বেশি আশ্চর্য হইনি।”  সূত্র: বিবিসি বাংলা

 

আরও পড়ুন