৩৪ বছরের পুরনো মামলায় জেলে যেতে হচ্ছে সিধুকে

কয়েক মাস আগেই বিধানসভা ভোটে হেরেছিলেন নভজোৎ সিং সিধু। এবার সুপ্রিম কোর্টে বড় ধাক্কা খেলেন ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশ কংগ্রেসের সাবেক সভাপতি সিধুকে।

৩৪ বছরের পুরনো একটি অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলায় সাবেক জাতীয় ক্রিকেটারকে এক বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির শীর্ষ আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে এই দণ্ডাদেশ দেন সর্বোচ্চ আদালত।

সুপ্রিম কোর্টের রায় ঘোষণার পরেই সিধু টুইটারে লিখেছেন, ‘আমি আদালতের কাছে আত্মসমর্পণ করব।’

 

১৯৮৮ সালের ২৭ ডিসেম্বর পটিয়ালার রাস্তায় গাড়ি পার্কিংকে কেন্দ্র করে গুরনাম সিং নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন সিধু ও তার বন্ধু রুপিন্দ্র সিং সান্ধু। অভিযোগ, গুরনামকে গাড়ি থেকে জোর করে টেনে বের করে মারধর করেন তারা। ওই ঘটনার কয়েক দিন পরে মারা যান গুরনাম।

ওই মামলায় নিম্ন আদালতে ছাড়া পেয়ে গেলেও ২০০৬ সালে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাই কোর্টের রায়ে অনিচ্ছাকৃত খুনের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন সিধু। হাইকোর্টের রায়ে তার তিন বছরের কারাদণ্ড হয়। কিন্তু পরের বছর সেই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন সিধু।

২০১৮ সালের শুরুতে সেই মামলার রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট। তাতে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাই কোর্টের সেই রায় বাতিল করে সিধুর এক হাজার টাকার জরিমানা হয়। এর পর অমৃতসর কেন্দ্র থেকে বিধানসভা নির্বাচনে জেতেন তিনি। মন্ত্রীও হন। কিন্তু সে বছরই সুপ্রিম কোর্টে ওই রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করে গুরনামের পরিবার। সেই আবেদনের ভিত্তিতে সুপ্রিম কোর্টের রিভিউ বেঞ্চ পুনর্বিচারের নির্দেশ দেয়। পটিয়ালা কোর্ট প্রমাণের অভাবে মুক্তি দিলেও বৃহস্পতিবার শীর্ষ আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন সিধু।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া।

আরও পড়ুন