আমি কাউকে ভুলে যেতে চাই না মেসি

advertisement

লিওনেল মেসি জানিয়েছেন, তিনি স্পানিশ লিগে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর বিরুদ্ধে মুখোমুখি হতে না পারার অভাব বোধ করেন। তিনি এও মনে করেন যে, রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক খেলোয়াড় ছিলেন লা লিগার জন্য ‘মর্যাদা’ বিশেষ।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো পাঁচ বছরের মধ্যে রিয়ালকে চারবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জিতিয়ে গত জুলাইয়ে ইতালির জুভেন্তাসে যোগ দেন। ইউরোপের মর্যাদাপূর্ণ টুর্নামেন্টটিতে এখনো তার সেরা নৈপুণ্য দেখিয়ে যাচ্ছেন রোনালদো। অতি সম্প্রতি অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক হাঁকিয়ে জুভেন্টাসকে তুলে আনে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে।

এ জয়ের ফলে একটা ব্যাপার পরিষ্কার হয়ে যায়। সেটি হলো ফাইনালের আগে বিশ্ব ফুটবলের সুপারস্টারদ্বয় ফাইনালের আগে কেউ কারো মুখোমুখি হচ্ছেন না। অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের মাঠ ওয়ানদা মেত্রোপোলিতানোয় অনুষ্ঠিত হবে ফাইনালটি।

রিয়াল মাদ্রিদ এখন স্পানিশ লিগে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার চাইতে ১২ পয়েন্টে পিছিয়ে আছে। অপরদিকে মেসি জানাচ্ছেন, তিনি রোনালদোর তরফে আসা প্রতিদ্বন্দ্বিতার অভাব বোধ করছেন।

মেসি আর্জেন্টিনার রেডিও এফএম ক্লাব ৯৪৭ কে বলেন, ‘আমি ক্রিশ্চিয়ানোর অভাব বোধ করি। যদিও তাকে ট্রফি উঁচিয়ে ধরতে দেখাটা ছিল কিছুটা মর্মাহতের ব্যাপার। তবে সে লা লিগার মর্যাদা বাড়াত।’

আর্জেন্টাইন অধিনায়ক বলেন, ‘ক্রিশ্চিয়ানোর আগমনের পর জুভেন্টাসও এখন চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের জন্য বড় দাবিদার। অ্যাটলেটিকোর বিরুদ্ধে খেলাটি তাদের অনেক বেশি আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছে।’

মেসি ও রোনালদোকে মনে করা হয়, ফুটবলের ইতিহাসে সেরা খেলোয়াড়দের দু’জন হিসেবে। তবে মেসির মতে তার ক্লাব সতীর্থ লুই সুয়ারেজকেও অন্য সেরাদের তালিকায় রাখা উচিত। এ ব্যাপারে বার্সেলোনা অধিনায়ক বলেন, ‘আমি কাউকে ভুলে যেতে চাই না। তাই আমি মনে করি নেইমার, কিলিয়ান এমবাপে, এডেন হ্যাজার্ড, লুই সুয়ারেজ ও সার্জিও অ্যাগুয়েরো সেরা। আমি রোনালদোর নাম নিচ্ছি না। কারণ আমি তাকে এই তালিকা থেকে সরিয়ে আমার পাশেই রাখছি।’

অ্যাগুয়েরো অবশ্য বিশ্বকাপের পর মেসির জাতীয় দলে ফেরার ম্যাচটিতে ছিলেন না। এটি অনেকের কাছেই বিস্ময়কর মনে হয়েছিল। কারণ ম্যানচেস্টার সিটির এই স্ট্রাইকার ইংলিশ ক্লাবটির সর্বকালের হিসেবে সেরা গোলদাতা। চলতি মৌসুমেও তিনি ১৮ গোল করেছেন এবং মেসি মনে করেন স্ট্রাইকারটির আন্তর্জাতিক খেলায় আরো বেশি নিয়মিত সুযোগ পাওয়া দরকার।

পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর মেসি ভেনেজুয়েলার বিরুদ্ধে খেলাটি দিয়েই নয় মাস পর আর্জেন্টিনা দলে ফিরেন। স্বদেশি ফরোয়ার্ডটির ব্যাপারে মেসি বলেন, ‘কুন (অ্যাগুয়েরো) অনেকবারই আমাকে বলেছে, আমি লিওর বন্ধু এবং একজন বদলি খেলোয়াড়। এটা যদি আমার ব্যাপার হতো, তাহলে কুনই সবসময় শুরু করত। আমি খেলতে আসি এবং সবসময়ই চেষ্টা করি নিজের সেরাটা দিতে। তা আমার পেছনে যাই বলা হোক না কেন। জাতীয় দলকে ঘিরে যা হয়, অনেক সময়ই তা উপভোগ করা কঠিন হয়। আমি ভাল খেলার ব্যাপারেই মনোযোগী থাকার চেষ্টা করি।’ স্কোরসওয়ে।

You might also like

advertisement