৩৫০ বুথে ভোটগ্রহণের দাবি বিজেপির

advertisement

লোকসভা নির্বাচনের প্রথম ধাপে পশ্চিমবঙ্গের দুই আসনে ভোট জালিয়াতি ও অনিয়মের অভিযোগ তুলে সাড়ে তিনশো বুথে পুনরায় নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে বিজেপি। তাদের অভিযোগ কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনী না থাকার সুযোগে অবাধে ব্যালটে সিল দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। ভোটারদের বুথে যেতে বাধা দেওয়া হয়েছে, এমনকি বুথে রাজ্য মন্ত্রী ঢুকে ভয় দেখিয়েছেন। শাসিয়েছেন। এসব অভিযোগ তুলে বিজেপি ৩৫০ বুথে আবারো ভোটগ্রহণের দাবি জানিয়েছে।

বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল শুক্রবার কমিশনে এই দাবি জানায়। পাশাপাশি রাজ্যের প্রধান নির্বাচনী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ধর্নায় বসেন বিজেপি নেতারা। পরে বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিলে দাবি ফিরে আসেন তারা।

অন্যদিকে নির্বাচনী প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পর ৩০ মে’র মধ্যে নির্বাচনী বন্ড ক্রেতাদের তথ্য রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্বাচন কমিশনে জানাতে হবে। গতকাল নির্বাচনী বন্ড সংক্রান্ত একটি জনস্বার্থ মামলার প্রেক্ষিতে এই নির্দেশ দিয়েছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। ভোটে কালো টাকার খেলা বন্ধ করার জন্য নির্বাচনী বন্ড চালু করেছিল নরেন্দ্র মোদি সরকার। কোনও ব্যক্তি বা কর্পোরেট সংস্থা রাজনৈতিক দলগুলিকে চাঁদা দিতে চাইলে ১ হাজার, ১০ হাজার, ১ লাখ, ১০ লাখ ও ১ কোটি টাকা মূল্যের বন্ড কিনে দলের হাতে তুলে দেবেন। রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্টে সেই বন্ড ভাঙিয়ে নিতে হবে। কিন্তু এর পরই বিষয়টির স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি গড়ায় আদালতে।

উত্তর প্রদেশে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের মুখে বিজেপি

দিল্লি সংলগ্ন উত্তর প্রদেশের পশ্চিমাঞ্চলে বৃহস্পতিবার ৮টি আসনে ভোট হয়েছে। এই আসনগুলোর বিজেপির ফল ভালো নাও হতে পারে। কারণ হিন্দুত্ববাদী জোয়ার তুলতে পারেনি বিজেপি। মুসলিমরা ভোটের ব্যাপারে নিরবতা অবলম্বন করছে। অন্যদিকে দলিতরাও বলছে না, তারা কাকে ভোট দেবে। সেখানকার আখ চাষীরা বিজেপি সরকারের প্রতি ক্ষুব্ধ। গোরক্ষা কার্যক্রম নিয়ে মুসলিমদের মধ্যে অসন্তোষ রয়েছে। সব মিলিয়ে এসব আসনে বিজেপিকে হাডাহাড্ডি লড়াইয়ের মুখে পড়তে হচ্ছে।

You might also like

advertisement