গ্রেপ্তার হতে পারেন অভিনেতা ফেরদৌস

advertisement

লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেয়ায় বাংলাদেশের অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদকে গ্রেপ্তার করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন বিজেপি নেতা জেপি মজুমদার। দলটির পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দেয়ার পর এরই মধ্যে ভারতীয় ফরেনার্স রিজিয়নাল রেজিস্ট্রেশন অফিস থেকে এ ব্যাপারে রিপোর্ট চেয়েছে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে কর্তৃপক্ষ এখনও কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানায়নি। টাইমস অব ইন্ডিয়া।

কমিশনে অভিযোগ দায়ের করার পর বিজেপি নেতা জেপি মজুমদার এএনআইকে বলেন, ‘ভারতে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারেন না বিদেশিরা। তৃণমূল বাংলাদেশি ফেরদৌসকে প্রচারে ব্যবহার করে নির্বাচনী বিধি ভঙ্গ করেছে। ভিসা নিয়ম ভাঙার জন্য ওর গ্রেফতার হওয়ার কথা।

ফেরদৌসকে প্রচারে ব্যবহার করায় তৃণমূলের কড়া সমালোচনা করেছেন বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়ও।

রবিবার উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে তৃণমূল প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়ালের সমর্থনে প্রচার করেন বাংলাদেশের অভিনেতা ফেরদৌস। এরপরই পশ্চিমবঙ্গকে ‘পশ্চিম বাংলাদেশ’ বানানোর চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি কটাক্ষ করে বলেন, ‘এমনটা আগে কখনও দেখেনি। কাল হয়তো ইমরান খানকেও প্রচারে ডাকবে তৃণমূল।

বিশ্লেষকরা বলছেন, উত্তর দিনাজপুরে মুসলিম ভোটার প্রায় ৫১ শতাংশ। রায়গঞ্জে এবার চতুর্মুখী লড়াইয়ে মুসলিম ভোট ফারাক গড়ে দিতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। মুসলিম ভোটের লক্ষ্যেই বাংলাদেশের অভিনেতা ফেরদৌসকে প্রচারে নামায় তৃণমূল।

১১ এপ্রিল ভারতে লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফায় ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম, ষষ্ঠ ও সপ্তম দফার ভোট রয়েছে যথাক্রমে ১৮ এপ্রিল, ২৩ এপ্রিল, ২৯ এপ্রিল, ৬ মে, ১২ মে ও ১৯ মে। এরপর ২৩ মে ফলাফল ঘোষণা করা হবে।

পশ্চিমবঙ্গ থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন, তৃণমূল থেকে অভিনেত্রী নুসরাত ও নায়ক দেব এবং বিজেপি থেকে গায়ক বাবুল সুপ্রিও।

You might also like

advertisement