ডেনমার্কে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন

advertisement

ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনেহেগেনে বাংলাদেশ দূতাবাস যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের সাথে আজ ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন করেছে। সকালে ডেনমার্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আব্দুল মুহিত জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিনব্যাপী কর্মসূচির সূচনা করেন। বিকালে দূতাবাস মিলনায়তনে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষ্যে বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ডেনমার্কে বসবাসরত বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার বাংলাদেশিরা অংশগ্রহণ করেন।

পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত এর মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সূচনা করা হয়। দিবসটি উপলক্ষ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বাণী পড়ে শোনানো হয়। অনুষ্ঠানে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসের উপর নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। পরে, প্রাণবন্ত উন্মুক্ত আলোচনায় বক্তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ঐতিহাসিক মুজিবনগর সরকারের ভূমিকা নিয়ে আলোকপাত করেন।

রাষ্ট্রদূত মুহিত তাঁর বক্তব্যের শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানে প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন, যিনি ২৬ মার্চ ১৯৭১ সালের প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন এবং যার দীর্ঘ তেইশ বছরের অক্লান্ত সংগ্রাম এবং প্রজ্ঞাবান নের্তৃত্বে বাঙ্গালী জাতির চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়েছিল।

তিনি গভীর শ্রদ্ধাভরে তিরিশ লক্ষ শহীদ এবং দুই লক্ষ নারীদের অপরিসীম আত্নত্যাগের কথা স্মরণ করিয়ে দেন, যাদের আত্নত্যাগের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি একটি ধর্মনিরপেক্ষ, প্রগতিশীল ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ। মুজিবনগর সরকারের তাৎপর্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের সেই কঠিন মুহুর্তে মুজিবনগর সরকার বাঙ্গালীর স্বাধীনতা আন্দোলনের ন্যায়সঙ্গত অধিকারের পক্ষে বর্হিবিশ্বে জনমত গঠন ও বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্রসমূহের সমর্থন আদায়ে মূল ভূমিকা পালন করে।

পরিশেষে, তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন-২০২১ ও ভিশন-২০৪১ বাস্তবে রূপ দিতে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানান। দূতাবাসের আয়োজনে চা-চক্র পরিবেশনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

You might also like

advertisement