“ বয়স্ক গাছ এবং অক্সিজেন” প্রতিবেদনঃ বৃত্তের বাহিরে

এম এ জলিল রানাঃ

advertisement

দেশব্যাপী বয়স্ক ও মরাগাছ কেটে ফেলা উদ্যোগ জরুরী বলে মনে করেন সচেতন মহল। দেশব্যাপী বহুদর্শী বা দীর্ঘ বয়সী গাছ এবং মরাগাছ কেটে ফেলতে সরকারীভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করা হলে তাতে মিলবে একের ভেতর অনেক সুফল। বর্তমানে সারাদেশে এ ধরনের গাছের সংখ্যা অনেক।

দেশব্যাপী সরকারী অফিস আদালত, বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরের ডিসি চত্বর থেকে উপজেলা চত্বর, পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে থানা চত্বর, জেলা হাসপাতাল থেকে শুরু করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পর্যন্ত, পৌরসভা থেকে ইউনিয়ন পরিষদ, ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে আরম্ভ করে হাট-বাজার এবং মহাসড়ক থেকে আঞ্চলিক সড়ক এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছোট ছোট সড়কগুলোতে যে সমস্ত বহুদর্শী বা দীর্ঘ বয়সী গাছ, মরাগাছ এবং আধমরা গাছগুলো আছে তা সরকারীভাবে কেটে ফেলার জন্য জরুরী ভিত্তিতে সরকারের উদ্যোগ গ্রহণ করা জরুরী।

একটি গাছে সবুজ অংশ যত বেশি থাকবে অক্সিজেন তৈরি ক্ষমতা তত বেশি থাকবে। দীর্ঘ বয়সী গাছে বেশির ভাগই সবুজ অংশ কমে যায়, কান্ড আর ডাল পালায় পরিণত হয়। অন্যদিকে শুকনো গাছ ভেঙ্গে পড়লে তা স্থানীয় জনগন ধীরে ধীরে গাছের ডালপালা কেটে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করতে করতে একসময়
গোটা গাছই গায়েব।

বয়স প্রাপ্ত উপযুক্ত গাছের কাঠ জ্বালানি খড়ি হিসেবে যতটা শক্তিশালী বহুদর্শী পোকালাগা, মরা এবং আধমরা গাছের কাঠে জ¦ালানি শক্তি সেই তুলনাই কম থাকে। অন্যদিকে এ সমস্ত গাছের কাট থেকে তৈরী আসবাবপত্রের (ফার্নিচার) গুনগতমান নিম্নমানের হয়ে থাকে। সর্বোপরি যেহেতু ওই গুলো বড় হচ্ছে না ফলে সরকারী সম্পদও বাড়ছেনা। আগের মতো অক্সিজেন ও তৈরি করছে না। অনেক ক্ষেত্রে সরকারী গাছ বলে প্রভাবশালী জনগন কর্তৃক তছরুপ হচ্ছে।

সেহেতু সরকারী গাছ, সরকারী উদ্যোগে জরুরী ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা দপ্তরের অধিনে নিয়ম মেনে আইনী প্রক্রিয়ায় বিক্রয় করাটা উত্তম। সেক্ষেত্রে পরবর্তীতে নতুন উদ্যমে বিভিন্ন প্রজাতির পরিবেশ বান্ধব চারাগাছ রোপন করা হলে পর্যায়ক্রমে সময়োপযোগী এ প্রজন্মের জন্য তৈরি হবে শান্তির ছায়া, নির্মল পরিবেশ, শীতল বাতাস, দুষনমুক্ত-পরিচ্ছন্ন অক্সিজেন।

প্রাকৃতিক বিপর্যয় নিয়ন্ত্রণে থাকবে, জীব-বৈচিত্র ও পরিবেশের ভারসাম্যও নিয়ন্ত্রণ হবে। বায়ু দুষনরোধ ও অক্সিজেনের চাহিদা পূরণে মরাগাছ ও বয়স্ক গাছ কেটে ফেলে চারাগাছ রোপনের সরকারী উদ্যোগ আরো বেশি জরুরী। এ বিষয়ে কোন এক সরকারী ডিগ্রী কলেজের উদ্ভিদ বিভাগের প্রভাষক তৌফিকুর রহমান নয়ন বলেন, একটি গাছের সবুজ অংশ যত বেশি থাকে ওই গাছ তত বেশি অক্সিজেন নিঃসারণ করে।

যে অক্সিজেন মানব দেহ বেঁচে থাকার জন্য অত্যন্ত জরুরী একটি বিষয়। কোন গাছ যখন বহুদর্শী বা বেশি বয়স্ক হয়ে যায় তখন গাছের সবুজ অংশ কমে যায় (অর্থাৎ পাতার অংশ কমে যায়)। ফলে গাছটিতে আর পূর্বের ন্যায় অক্সিজেন তৈরি হয় না। পৃথিবীতে দিন দিন জনসংখ্যা বেড়েই চলেছে। বায়ু দুষণের দিক থেকে বাংলাদেশ ঝুঁকিতে রয়েছে। তাই বায়ু দুষণরোধ করে অক্সিজেনর চাহিদা পূরণে নতুন করে পর্যাপ্ত চারাগাছ রোপন অত্যন্ত জরুরী এবং এটা এখন সময় উপযোগী দাবী বলে উল্লেখ করেন অনেকে।

You might also like

advertisement