শ্রীলংকায় বোমা হামলায় খ্রিষ্টান এসোসিয়েশনের নিন্দা

advertisement

পবিত্র ইস্টার সানডের দিন শ্রীলংকায় গির্জা ও হোটেলে সিরিজ বোমা হামলায় হতাহতের ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ, নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ খ্রিষ্টান এসোসিয়েশন। সোমবার এক বিবৃতিতে এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট নির্মল রোজারিও এবং মহাসচিব হেমন্ত আই কোড়াইয়া এই প্রতিবাদ ও নিন্দা জানান।

বিবৃতিতে এই জঘন্য, নিষ্ঠুর এবং পাশবিক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করে জানানো হয়, ‘এই ঘটনা আমরা কোনভাবেই মেনে নিতে পারিনা। ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করি এই নিষ্ঠুরতা ও বর্বরতাকে। কেবলমাত্র ধর্ম বিশ্বাস, জাতি ও বর্ণভেদের কারণে এভাবে মানুষকে হত্যা করা যায় না। আর তা চলতে থাকলে মানবতা বিপন্ন হবে, তাতে কোন সন্দেহ নেই’।

এসোসিয়েশনের দেওয়া ওই বিবৃতিতে অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘গত মাসে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইষ্ট চার্চ শহরে মসজিদে হামলা এবং গতকাল শ্রীলংকায় গির্জায় হামলা অত্যন্ত নিন্দনীয়, অনাকাংখিত ও অগ্রহণযোগ্য। এ ধরণের ঘটনা বিশ্বভাতৃত্ব, সম্প্রীতি ও শান্তির অন্তরায়। যা কোনভাবেই কাম্য হতে পারে না’। তারা শ্রীলংকার জনগণ ও সরকারের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে সরকারকে কঠোর থেকে কঠোরতর ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান।

নেতৃবৃন্দ নিহতদের আত্মার মঙ্গল কামনা এবং আহতদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে নিহত ও আহতদের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০ টায় বাংলাদেশ খ্রীষ্টান এসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে রাজধানীর শাহবাগস্থ জাতীয় যাদুঘরের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়।

এর আগে, রবিবার শ্রীলঙ্কায় ইস্টার সানডের প্রার্থনার সময় তিনটি গির্জা, তিনটি অভিজাত হোটেল ও কলম্বোর পার্শ্ববর্তী এলাকায় মোট আট জায়গায় সিরিজ বোমা হামলা চালানো হয়। এতে প্রাণ হারান ৩৫ বিদেশি নাগরিকসহ মোট ২৯০ জন। আহত হন অন্তত পাঁচ শতাধিক মানুষ।

You might also like

advertisement