১৪ দলের নেতৃবৃন্দ সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে

advertisement

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ‘খুনি, ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে মাঠে থাকবে ১৪ দল’। সোমবার বিকালে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘খুনি, দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আমাদের সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। সেই লক্ষ্যে আগামী ২৬ এপ্রিল মতিঝিলে একটি সমাবেশ করবো। কেন্দ্রীয় ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ সকল অপকর্মের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে’।

হাইব্রিড আওয়ামী লীগ নেতারা দলের অনেক ক্ষতি করছে উল্লেখ করে তিনি জানান, হাইব্রিডরা দলের অনেক ক্ষতি করছে। এরা বিএনপি-জামায়াতের প্রেতাত্মা। তা না হলে একজন হত্যাকারিকে আশ্রয় প্রয়োজন দিতে পারে। এনম দু একজনের জন্য আমাদের সকল অর্জন নষ্ট হতে দিতে পারি না’।

বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘বিএনপি বিভিন্ন জাতীয় দিবস পালন না করে, জনগনের সাথে প্রতারণা করে ইতিহাস অস্বীকার করতে চায়। যারা জাতীয় দিবস গুলো পালন করে না তারা কি করে স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে? তার চিকিৎসা কি ভাবে হবে তা নির্ধারণ করবে ডাক্তাররা। দলের নেতারা কেন খালেদা চিকিৎসার ব্যাপারে জনগনকে বিভ্রান্ত করছেন। যারা ১৭ এপ্রিল মুজিব নগর দিবস পালন করে না তারা স্বাধীনতার পক্ষের বা স্বাধীনতার বিশ্বাস করে এটা আমার বিশ্বাস হয় না। হঠাৎ করে স্বাধীনতার পেক্ষপট তৈরি হয়নি। দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে এই প্রেক্ষাপট বঙ্গবন্ধু তৈরি করেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, ‘জিয়াউর রহমান কারফিউ দিয়ে দেশ চালিয়েছে এটার মধ্যে বিএনপি ও বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবীরা গণতন্ত্র খুজে পায়। আসলে বিএনপি নামের এই দলটি তৈরি করেছিলো পাকিস্তান। এই দলের লক্ষ্য বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করা। এই বিষফোরা দলটি যত দিন থাকবে ততদিন দেশের উন্নয়নের বাঁধা থাকবে’।

রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘আজ বিএনপি-জামায়াতকে কোণঠাসা করতে পেরেছি কিন্তু রাজনৈতিকভাবে পুরোপুরি পরাজিত করতে পারিনি। আজ উগ্রসাম্প্রদায়িক শক্তি মাথা চাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করছে। উগ্রসাম্প্রদায়িক শক্তি শ্রীলংকায় হামলা করেছে। এদেশকে আমরা এই ধ্বংসের কিনারায় ঠেলে দেবো কিনা আজ আমাদের ভাবতে হবে’।

সভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন এমপি, জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি, সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এমপি, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়–য়া, গণতন্ত্রি পার্টির সাধারণ সম্পাদক ড. শাহাদাত হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

You might also like

advertisement