বাঁশের সাঁকোই লক্ষাধিক মানুষের পারাপারের ভরসা

এম,লুৎফর রহমান,নরসিংদী প্রতিনিধিঃ

advertisement

নরসিংদীর রায়পুরার রাধাগঞ্জে আড়িয়াল খাঁ নদের উপর সেতু না থাকায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন শিবপুর ও রায়পুরা উপজেলার ১২ গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ। সেতু না থাকায়
ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের সাকো ও বর্ষা মৌসুমে ছোট নৌকায় নদী পারাপার হতে গিয়ে ঘটছে দুর্ঘটনা।

দুর্ভোগ লাগবে স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরে সেতু নির্মাণের দাবী জানিয়ে আসলেও বাস্তবায়ন হচ্ছে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। সরেজমিন গিয়ে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রায়পুরা উপজেলার আদিয়াবাদ এবং পার্শ¦বর্তী শিবপুরের যোশর ও বাঘাব ইউনিয়নের নয়াচর, সৈকার চর, যোশর, মাখাল্লা, কামালপুর, জানখারটেক, লেটাব, দক্ষিন কামালপুর, কাজিয়ারা, শ্রীরামপুরসহ ১২ গ্রামের লক্ষাধিক মানুষের ঐতিহ্যবাহি রাধাগঞ্জ বাজারসহ অন্যান্য স্থানে যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম একটি বাঁশের সাকো। বর্ষা মৌসুমে নদের পানি বেড়ে গেলে পারাপার হতে হয় ছোট নৌকাযোগে।

দৈনিক ২ থেকে ৩ হাজার মানুষ নিয়মিত ও সপ্তাহের তিনদিন রাধাগঞ্জ হাটের দিন আরও বেশি মানুষের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা এ সাকো। রাধাগঞ্জ বাজারস্থ সরকারি ঘাট থেকে নৌকা ও বাঁশের সাকোর মাধ্যমে পারাপার হতে গিয়ে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। জরুরি রোগী হাসপাতালে নেয়া, বাজারে কৃষিপণ্য ও মালামাল আনা নেয়া, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকিসহ পোহাতে হয় নানা দুর্ভোগ। ঝুঁকি ও দুর্ভোগ নিয়ে নদ পারাপার হতে গিয়েও সরকারী এই ঘাটে জনপ্রতি ১০ টাকা দিতে হয় ইজারাদার খরচ।

দীর্ঘদিন ধরে দুর্ভোগ পৌহাচ্ছে স্থানীয়রা। এখানে সেতু নির্মাণের দাবী জানিয়ে আসলে স্থানীয় সংসদ সদস্য রাজি উদ্দিন আহমেদ রাজুর আশ্বাসের পরও সেতু নির্মাণের দাবী বাস্তবায়ন হচ্ছে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। নয়াচর গ্রামের বাসিন্দা অছিউদ্দীন আহমেদ বলেন, এখানে একটি ডিগ্রি মাদ্রাসা, একটি উচ্চ বিদ্যালয় ও কিন্ডার গার্টেন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ হাজার হাজার মানুষের একমাত্র ভরসা এই বাঁশের সাকো ও বর্ষকালে ছোট ডিঙ্গি নৌকা। এতে আমাদের দুর্ভোগের শেষ নাই। স্থানীয় সংসদ সদস্য সেতুটি হবে বলে এলাকাবাসীকে আশ্বাস দিয়েছেন।

আদিয়াবাদ ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা আব্দুল মান্নান বলেন, রাধাগঞ্জ বাজারটি রায়পুরার ঐতিহ্যবাহি ও পুরনো বাজার। বাজারসহ আশেপাশের হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাকো পার হয়ে থাকেন। এতে মালামাল পরিবহন ও রোগী আনা নেওয়া অনেক কষ্টকর। নয়াচর উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র শফিকুল ইসলাম জানায়, বর্ষকালে নৌকায় পারপার হতে গিয়ে দেরি হয়ে যাওয়ায় যথাসময়ে ক্লাসে হাজির হতে অসুবিধা হয়।

বাঁশের সাকোটাও প্রায়ই ভেঙ্গে পড়ে। অনেক সময় মানুষ পড়ে গিয়ে আহত হয়। যোগাযোগ করা হলে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর নরসিংদীর নির্বাহী প্রকৌশলী রায়হান সিদ্দীক বলেন, পল্লী সড়কে গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় নরসিংদী জেলার মোট ৫টি সেতুর মধ্যে এখানে ১টি সেতু নির্মাণের প্রস্তাবনা প্রক্রিয়াধীন আছে। এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় সার্ভে করা হয়েছে এখন ডিজাইন পাওয়ার পর দরপত্র আহবান করা হবে। আশা করছি সেতুটি নির্মাণ হলে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ লাগব হবে।

You might also like

advertisement