আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলবে, আমরা জিতবো

advertisement

বিশ্বকাপ যাত্রা শুরুর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সদস্যরা। মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে পৌঁছান ক্রিকেটাররা। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে মাশরাফি বাহিনী।

এসময় প্রধানমন্ত্রী অধৈর্য ও হতাশ না হয়ে শেষ পর্যন্ত লড়ে যেতে খেলোয়াড়দের পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলবে, আমরা জিতবো। সব সময় মনের মধ্যে আত্মবিশ্বাসটা রাখবে।

খেলোয়াড়দের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, শেষের দিকে স্ট্যামিনাটা ঠিক রাখতে হবে। একবার ছয় মারলে মনে হতে পারে পরেরটাও ছয় মারতে পারবে। ওই সময় শান্ত থেকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খেলা দেখতে লন্ডনে যাওয়ার অনুরোধ করেন। পাপন বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে পাশে পেলে খেলোয়াড়দের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাবে।

তখন প্রধানমন্ত্রী হেসে তার যাওয়ার ইচ্ছা রয়েছে বলে জানান। তিনি বলেন, ‘আমার ফোন নম্বর তো তোমাদের অনেকের কাছে আছে। তোমরা আমাকে মেসেজ পাঠিও। এরপর ফোনে কথা বলা যাবে।

বিসিবি সভাপতির উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ওদের (খেলোয়াড়) কোনো চাপ দিও না। খেলার ফলাফলের পর ওদের কিন্তু কোনো বকাঝকা করবে না। খেলোয়াড় সুলভ মনোভাব নিয়ে ফল মেনে নিতে হবে।’

এসময় নাজমুল হাসান পাপন বলেন, খেলার সময়ই তো আপনি সব সময় এই নিয়ে ফোন করে বলে দেন। তাই আমরা ওদের বকাঝকা করি না।

খেলোয়াড়দের অনেকেই এবার বিশ্বকাপ উপলক্ষে শরীর কমানোর চেষ্টা করেছেন জানতে পেরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একেবারে শুকিয়ে গেলে ফিট থাকবে তা তো না। শুকাতে গিয়ে নিজেদের দুর্বল করে ফেলো না।

একপর্যায়ে একজন খেলোয়াড় বললেন, এবার বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের মধ্যে পাঁচ-ছয়জন বিয়ে করেছেন। এই কথা শুনে উপস্থিত সবাই হেসে ফেলেন।

তখন প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামীতে তোমরা এখানে নিজেদের পরিবার নিয়ে আসবে।

সাক্ষাৎ শেষে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও ক্রিকেটাররা একসঙ্গে দুপুরের খাবার খান।

আগামীকাল বিশ্বকাপের উদ্দেশে দেশ ছেড়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। তার আগে ৫ মে আয়ারল্যান্ডে শুরু হচ্ছে ত্রিদেশীয় সিরিজ। সেখানে আয়ারল্যান্ড ছাড়াও ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং বাংলাদেশ খেলবে।

You might also like

advertisement