গোলানে ট্রাম্পের শহরের উপযুক্ত স্থান

advertisement

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, গোলান মালভূমিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নামে ইহুদি বসতি স্থাপনের জন্য জায়গা নির্দিষ্ট করা হয়েছে। এর আগে দখলকৃত সিরীয় ভূখণ্ডের গোলান মালভূমিতে একটি শহর গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছিল ইসরাইল। রবিবার ইসরাইলের মন্ত্রিসভার সদস্যদের এই বিষয়ে অবহিত করেছেন নেতানিয়াহু। তিনি জানান, ট্রাম্পের শহর গড়ে তোলার জন্য উপযুক্ত স্থান তারা খুঁজে পেয়েছেন।

১৯৬৭ সালের আরব-ইসরাইল যুদ্ধের সময় সিরীয় ভূখণ্ড গোলান মালভূমি দখল করে নেয় ইসরাইল। তবে আন্তর্জাতিক সম্প্র্রদায় কখনো ইসরাইলের এই দখলদারিত্বের স্বীকৃতি দেয়নি।

তবে দীর্ঘদিনের মার্কিন নীতি থেকে সরে এসে ২০১৯ সালের ২৫ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে গোলান মালভূমির ওপর ইসরাইলি দখলদারিত্বের স্বীকৃতি দেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসে ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এবং ট্রাম্পের জামাতা ও উপদেষ্টা ইহুদি ধর্মাবলম্বী জ্যারেড কুশনারের উপস্থিতিতে ২৫ মার্চ এ সংক্রান্ত ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষর করেন ট্রাম্প।

গত মাসে নেতানিয়াহু জানিয়েছিলেন, দখলকৃত গোলান মালভূমিতে ট্রাম্পের নামে একটা কমিউনিটি গড়ে তোলা হবে এই কৌশলগত ভূখণ্ডে ইসরাইলের মালিকানার স্বীকৃতি দেওয়ার প্রতিদান হিসেবে। তখন তিনি বলেছিলেন, যখন ওই কমিউনিটি গড়ে তোলা হবে তখন তা মন্ত্রিসভায় অনুমোদনের জন্য অবহিত করা হবে।

গত সপ্তাহে জানা গিয়েছিল, প্রথম ধাপে ১২০টি সেক্যুলার-ধর্মীয় বসতি গড়ে তোলা হবে ওই কমিউনিটিতে। এটা গড়ে তোলা হবে উত্তর গোলানে। এর আগে ১৯৯২ সালে এখানে বসতি গড়ে তোলার অনুমতি দেওয়া হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।

গোলানে বর্তমানে রয়েছে ৩৩টি শহর ও গ্রাম। এগুলোর মধ্যে নিমরদ গ্রামটি ১৯৯৯ সালে গড়ে তোলা হয়েছিল। সিবিএসের তথ্য অনুসারে, ২০১৭ সালে গোলানে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা ৫০ হাজার। এদের মধ্যে ইহুদি ২৩ হাজার ও ইহুদি নয় এমন ধর্মালম্বী মানুষের সংখ্যা ২৭ হাজার।

You might also like

advertisement