ভারতের বিশ্বকাপ সেরা একাদশে সাকিব

advertisement

আশা নয়, বলা চলে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রাথমিক লক্ষ্যই ছিলো বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলা। কিন্তু ভারতের কাছে হেরে শেষ হয়ে যায় সে সম্ভাবনা। সেমির স্বপ্ন ভঙ্গ হওয়ার পর আশা ছিলো পাকিস্তানের বিপক্ষে জিতে অন্তত বিশ্বকাপের সমাপ্তিটা ইতিবাচকভাবে করা।

কিন্তু কিসের কি! ক্রিকেটের মক্কাখ্যাত ঐতিহাসিক লর্ডসে পাকিস্তানের কাছে যেন পাত্তাই পেল না মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। পারলো না বিশ্বকাপের শেষটা মনের মতো করতে। হতাশাজনক বোলিং-ফিল্ডিংয়ের পর ব্যাটিংটাও আশানুরূপ না হওয়ায়, শেষ ম্যাচের ফলটাও এসেছে নেতিবাচক।

বিশ্বকাপের প্রায় সকল ম্যাচেই নিসঙ্গ নাবিক ছিলেন সাকিব আল হাসান। একা হাল ধরে এগিয়েছেন। কিন্তু কাউকে সঙ্গী হিসেবে পাননি।

এবারের বিশ্বকাপে সাকিব মাঠে নামা মানেই রেকর্ড বইয়ে আমূল পরিবর্তন। ব্যক্তিগতভাবে কতগুলো রেকর্ড হচ্ছে, সে হিসাব প্রতি ম্যাচেই রাখতে হচ্ছে। পাকিস্তানের বিপক্ষে ফিফটি করে বিশ্ব ক্রিকেটের কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারের অনন্য এক রেকর্ডও ছুঁয়েছেন।

এদিকে বিশ্বকাপের সেরা একাদশ বাছাই করেছেন ভারতের জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলে। তার এই একাদশে জায়গা পেয়েছেন বাংলাদেশ দলের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

বিশ্বকাপে ব্যাট-বলে হাতে দারুণ ছন্দে ছিলেন সাকিব। ৮ ম্যাচে ৮৬.৫৭ গড়ে ব্যাট হাতে ৬০৬ রান করেছেন তিনি। পাশাপাশি বল হাতে ১১ উইকেট শিকার করেছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। অলরাউন্ডার হিসেবে বিশ্বকাপে ইতিহাস গড়া সাকিবকে তাই দলে রেখেছেন হার্শা।

ওপেনার হিসেবে হার্শা তার দলে রেখেছেন ভারতের রোহিত শর্মা এবং ইংল্যান্ডের জেসন রয়কে। ৯ ম্যাচে ৬৪৮ রান নিয়ে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক রোহিত। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান হাঁকিয়েছেন ৫টি সেঞ্চুরি এবং একটি হাফ সেঞ্চুরি। ৬ ইনিংসে ৭১ গড়ে ৪২৬ রান সংগ্রহ করেছেন ইংল্যান্ড ওপেনার জেসন রয়। এখন পর্যন্ত একটি সেঞ্চুরি এবং ৪টি হাফ সেঞ্চুরি করেছেন তিনি।

হার্শার একাদশে যথাক্রমে তিন এবং চার নম্বরে আছেন ইংলিশ ব্যাটসম্যান জো রুট এবং নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। ১০ ইনিংসে ৬৮.৬২ গড়ে ৫৪৯ রান সংগ্রহ করেছেন জো রুট। ২টি সেঞ্চুরি ও ৩টি হাফ সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তিনি।

কেন উইলিয়ামসন ৯ ইনিংসে ৯১.৩৩ গড়ে ৫৪৮ রান সংগ্রহ করেছেন। কিউই দলপতি হাঁকিয়েছেন ২টি সেঞ্চুরি এবং সমান সংখ্যক হাফ সেঞ্চুরি। ব্যাটিং পজিশনে উইলিয়ামসনের পরই অছেন বাংলাদেশ প্রাণভোমরা সাকিব।

সাকিবের পরের জায়গাটা ইংল্যান্ডের অলরাউন্ডার বেন স্টোকসের। ব্যাট হাতে ১০ ম্যাচে ৫৪.৪২ গড়ে ৩৮১ রান সংগ্রহ করেছেন স্টোকস। আর বল হাতে ৪.৭২ ইকোনমিতে ৭ উইকেট শিকার করেছেন তিনি।

উইকেটরক্ষক হিসেবে হার্শার পছন্দ অস্ট্রেলিয়ার অ্যালেক্স ক্যারিকে। ১০ ম্যাচে ৬২.৫০ গড়ে ৩৭৫ রান সংগ্রহ করেছেন এই অজি ব্যাটসম্যান। তার নামের পাশে আছে ৩টি হাফ সেঞ্চুরি।

পেস বোলারদের মধ্যে হার্শার পছন্দের তালিকায় আছেন অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক, ইংল্যান্ডের জফরা আর্চার এবং ভারতের জাসপ্রিত বুমরাহ। ১০ ম্যাচে ২৭ উইকেট নিয়ে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারির তালিকায় এখনও শীর্ষে আছেন স্টার্ক।

১১ ম্যাচে ১৯ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছেন ক্যারিবিয়ান বংশোদ্ভূত আর্চার। ভারতের পেস তারকা বুমরাহ ৯ ম্যাচে নিয়েছেন ১৮ উইকেট।

একমাত্র স্পিনার হিসেবে হার্শা একাদশে রেখেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার তারকা ইমরান তাহিরকে। দল সেমিফাইনালে উঠতে ব্যর্থ হলেও বল হাতে ছন্দে ছিলেন ৪০ বছর বয়সী তাহির। ৯ ম্যাচে ১১ উইকেট শিকার করেছেন এই লেগ স্পিনার।

হার্শা ভোগলের বিশ্বকাপ সেরা একাদশ: রোহিত শর্মা, জেসন রয়, জো রুট, কেন উইলয়ামসন, সাকিব আল হাসান, বেন স্টোকস, অ্যালেক্স ক্যারি, মিচেল স্টার্ক, জফরা আর্চার, জাসপ্রিত বুমরাহ ও ইমরান তাহির।

You might also like

advertisement